সপ্তমীর দিন সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে সেলেবদের ছবি। সবাই তাঁদের সপ্তমীর লুক শেয়ার করেছে সোশ্য়াল মিডিয়ায়। তবে সপ্তমীতে মন খারাপ শ্রীলেখার। বৃহস্পতিরার নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি দেন অভিনেত্রী। ছবিতে শ্রীলেখার মুখে হাসি নেই। একেবারে ভাবলেশহীন তিনি।

মহা সপ্তমীতে সেজে উঠেছে তিলোত্তমা। একে একে নিজেদের সপ্তমী লুকের ছবি দিচ্ছেন টলি সেলেবরা। সপ্তমীর সকালে নিজের একটি ছবি দিলে অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।

সপ্তমীর সকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের একটি ছবি শেয়ার করেন শ্রীলেখা। ক্যাপশনে লিখেছেন, সবাই ছবি দিচ্ছে তাই আমিও দিলাম, সপ্তমীর সাজ। সেই ছবিতে শ্রীলেখার ভাবলেশহীন মুখ,মুখে মেকআপের লেশমাত্র ছিটেও নেই। ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে এমনই এক সেলফি তোলেন সদা প্রাণোচ্ছ্বল শ্রীলেখা। পুজোর ঠিক আগেই বাবাকে হারিয়েছেন। এখনও মেনে নিতে পারছেন না বাবা নেই। তাই এবারের পুজোয় তাঁর খানিকটা মন খারাপ।

বাবা নেই মানতে পারছেন না অভিনেত্রী। জুরিখ থেকে ফিরে বাবার সঙ্গে আর দেখা না হওয়ার আক্ষেপও করেছেন।বেশ কিছু বছর আগে মা-কে হারিয়েছিলেন অভিনেত্রী। তারপর বাবাই ছিলেন তাঁর বেস্ট ফ্রেন্ড, তাঁর গাইড। বলা যায়, বাবা সন্তোষ মিত্রকে বেশ কিছুটা আগলেই রাখতেন শ্রীলেখা।

কিছুদিন আগেই বাবার সঙ্গে ছবি তুলে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছিলেন শ্রীলেখা। এক পারিবারিক অনুষ্ঠানে একই রঙের পোশাক পরে গিয়েছিলেন দু’জনে। অভিনেত্রী লিখেছিলেন, ‘আমি ও বাবা… সেম সেম…’। ম্যাচিং পোশাকের বিষয়টি বোঝানোর জন্যই ওই ক্যাপশন দেন তিনি। এমনকী রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির ক্ষেত্রেও ‘সেম সেম’ তাঁরা। আসলে বাবা সন্তোষ মিত্রের সঙ্গে অসম্ভব ভালো বন্ড শেয়ার করতেন শ্রীলেখা। তাঁর যে কোনও সিদ্ধান্তে সবসময় পাশে পেয়েছেন বাবাকে।

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে যোগ দিতে ইউরোপ গিয়েছিলেন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।প্রায় একমাসের কাছাকাছি সময় কাটিয়ে ইউরোপ থেকে ফিরেছেন অভিনেত্রী। সেই সময় ইউরোপ থেকে ফোনে এই সময় ডিজিটালকে অভিনেত্রী জানিয়েছিলেন, বাবা ও মেয়ে আছে বলেই দেশে ফিরছেন নয়তো ওখানেই থেকে যেতেন।

টালিগঞ্জে কান পাতলে শোনা যায়, কেরিয়ারের শুরুতে বাবার হাত ধরেই স্টুডিও পাড়ায় যেতেন অভিনেত্রী। শ্যুটের সময় সেটে উপস্থিত থেকে মেয়েকে উৎসাহ দিতেন শ্রীলেখার বাবা। মেয়ের কেরিয়ারের উন্নতিতে ব্যাকবোন ছিলেন তিনি। আসলে সন্তোষ মিত্র নিজেও অভিনেতা ছিলেন। তাই শ্রীলেখার অনুপ্রেরণা ছিলেন তাঁর বাবা।

বাবার চলে যাওয়া কিছুতেই মানতে পারছেন না অভিনেত্রী। সম্প্রতি বাবাকে নিয়ে ফেসবুকে দীর্ঘ পোস্ট দিয়ে লেখেন, ‘আমার বাবা আমার কী সেটা আমরা দুজনেই শুধু জানি। বাবাগো তোমার সাথে কথা হয়েছিল তুমি আমায় বোঝাবে যে তুমি আমার কাছে আছো, সেটা এমনি এমনি না, আমায় প্রুফ দিয়ে বোঝাবে বলে রাখলাম, না হলে তোমায় ছাড়তে পারছি না, ছাড়বো না, এইভাবে কষ্টে থাকবো তুমি দেখবে, আমায় প্রুফ দাও…।’



Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here